খবরের বিস্তারিত...

ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ

ইসির সাথে সংলাপে ‘না’ ভোট ও ইভিএম সহ ১২ দফা দাবী পেশ করেছে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ

সেপ্টে. 14, 2017 সাংগঠনিক খবর

আগামী নির্বাচনে ‘না’ ভোট, ইলেক্ট্রনিক ভোটিং (ইভিএম) এবং প্রবাসীদের ভোটার করাসহ নির্বাচন কমিশনে (ইসি) দেয়া ১২ দফা প্রস্তাব দিয়েছে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেল ৩ টায় নির্বাচন ভবনে এসে ইসি’র কাছে নিজেদের এসব প্রস্তাবনা দেয় দলটির ১২ সদস্যের প্রতিনিধিদল।

ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের চেয়ারম্যান সৈয়দ বাহাদুর শাহ মোহাদ্দেদী বলেন,‘ নির্বাচন কমিশন গঠনের ক্ষেত্রে স্থায়ী সাংবিধানিক নির্দেশনা না থাকায় রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে কমিশন সব সময় আস্থার সংকটে ছিলো। সুষ্ঠু নির্বাচন ঘিরে সন্দেহ-অবিশ্বাস দূর করতে শক্তিশালী আইন প্রণয়ন এবং সংস্কারের সুযোগ রয়েছে।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে নির্বাচন কমিশন গত ২৪ আগস্ট থেকে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ করছে। এরই অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার বিকেলে নির্বাচন ভবনে আসে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের প্রতিনিধিদল।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ ১২(বারো) দফা প্রস্তাবনা-

১. না ভোটের বিধান রাখা,

২. ইলেক্ট্রনিক ভোটিং ব্যবস্থা চালু করা,

৩. নির্বাচনী ব্যয় সংকোচন, কালো টাকার ব্যবহার রোধ ও সকল
প্রকার নির্বাচনী ব্যয় কমিশন কর্তৃক বহন করা,

৪. তফসিল ঘোষণার আগে সংসদ ভেঙ্গে দেয়া,

৫. কমিশনের নিজস্ব লোকবল থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ করা,

৬. জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী ও ভোটারদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ১০০ আসন করে তিন ধাপে ৩০০ আসনে নির্বাচন করা,

৭. দল, মত, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল ভোটারের পোলিং বুথ পর্যন্ত আসা যাওয়ার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা,

৮. আগামী সংসদ নির্বাচনসহ সকল নির্বাচনে জাতীয় পাসপোর্ট ডাটাবেস ব্যবহার করে সকল বৈধ প্রবাসী বাংলাদেশীদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে দেয়া,

৯. রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে নিয়মিত সংলাপের আয়োজন করা,

১০. মনোনয়নপত্র জমাদানে প্রার্থীদের রিটার্নিং কর্মকর্তার অফিসে
যাওয়া আসার নিরাপত্তা দেয়াসহ অনলাইনে নমিনেশন ফরম জমাদানের ব্যবস্থা রাখা,

১১. নির্বাচন পরবর্তী প্রার্থীদের ব্যয় (আগে থেকে মনিটরিং এর ব্যবস্থা রাখা) যাচাই করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা,

১২. তফসিল ঘোষণার পর কমিশনের উপর প্রভাব বিস্তার করতে পারে এমন মন্ত্রণালয় গুলোকে যে কোন সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে কমিশনের সাখে পরামর্শের ব্যবস্থা করা।

Comments

comments

Related Post